রবিবার, ০২ অক্টোবর ২০২২, ০৭:৩৮ অপরাহ্ন
বিজ্ঞাপন

পেকুয়ায় ইট, পাটকেল ছোঁড়ে বসতবাড়ি ভাংচুর , আহত-১

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ২৬ আগস্ট, ২০২২
  • ৫৪ Time View

পেকুয়া প্রতিনিধি:
কক্সবাজারের পেকুয়ায় ইট, পাটকেল ছোঁড়ে হামলায় ১ জনকে গুরুতর জখম করার খবর পাওয়া গেছে। এ সময় উত্তেজিত লোকজন বসতবাড়িতে ব্যাপক ভাংচুরসহ তান্ডব চালায়। আহত ব্যক্তিকে স্থানীয়রা উদ্ধার করে পেকুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। খবর পেয়ে পেকুয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার পূর্বিতা চাকমা পুলিশ নিয়ে দ্রæত ঘটনাস্থলে যান। এ সময় ইউএনও এর উপস্থিতিতে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন আনা হয়। ২৬ আগস্ট (শুক্রবার) সকাল ৮ টার দিকে উপজেলার সদর ইউনিয়নের আন্নরআলী মাতবরপাড়ায় কলেজ গেইট চৌমুহনীর পেট্টোল পাম্পের নিকটে হামলার এ ঘটনা ঘটে। আহত ব্যক্তির নাম মো: কাইয়ুম বিএ (২৫)। তিনি আন্নর আলী মাতবরপাড়ার মোহাম্মদ মিয়ার পুত্র। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বসতভিটার জায়গা নিয়ে আন্নরআলী মাতবরপাড়ায় মৃত ফজর আহমদের পুত্র কলেজ গেইট চৌমুহনীর পান ব্যবসায়ী মোহাম্মদ মিয়া ও প্রতিবেশী মৃত রমজান আলীর পুত্র রুবেল গংদের মধ্যে বিরোধ চলছিল। বসতভিটার ১.৫৮ শতক জায়গা নিয়ে সিনিয়র সহকারী জজ আদালত, চকরিয়ায় অপর মামলা ১৬৪/২২ রুজু করা হয়েছে। বিরোধীয় বিষয়ে এডভোকেট কমিশন সরেজমিন পরিদর্শন করেছেন। চলতি বছরের ২৫ মে জৈষ্ট্য আইনজীবি এডভোকেট মোহাম্মদ কাউছার আলমের নেতৃত্বে উকিল কমিশন ওই স্থানে এসেছেন। জায়গার বিষয়ে মৃত ফজর আহমদের পুত্র মোহাম্মদ মিয়া বাদী হয়ে চলতি বছরে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট আদালত, কক্সবাজারে এম,আর মামলা রুজু করেন। যার নং ৭৩৮/২২। ঘটনার দিন সকালে মৃত রমজান আলীর পুত্র রুবেলসহ ১০/১২ জনের উত্তেজিত লোকজন লোহার রড,লাঠিসোটা নিয়ে পান ব্যবসায়ী মোহাম্মদ মিয়ার বসতবাড়িতে হানা দেয়। এ সময় প্রতিপক্ষের লোকজনকে ছত্রভঙ্গ করতে রুবেলের অনুগত লোকজন প্রচন্ড ইট, পাটকেল ছোঁড়ে। ছোঁড়া ইট পাটকেলের আঘাতে মোহাম্মদ মিয়ার পুত্র মো: কাইয়ুম মাথায় আঘাতপ্রাপ্ত হন। এমনকি উত্তেজিত লোকজন মোহাম্মদ মিয়ার বসতবাড়ি লক্ষ্য করে ইট, পাটকেল ছোঁড়ে। এ সময় মিয়ার টিনের ছাউনি বসতবাড়ির ছালা বিনষ্ট হয়ে যায়। টিনের ছালায় ইটের আঘাতে একাধিক স্থানে ফুটো হয়ে যায়। খবর পেয়ে পেকুয়া ইউএনও পূর্বিতা চাকমা সকালে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এ সময় পেকুয়া থানার দুই এস,আইসহ সঙ্গীয় পুলিশ ফোর্স গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনেন। এর কিছুক্ষণ পরে পেকুয়া সদর ইউপির চেয়ারম্যান এম,বাহাদুর শাহও ওই স্থানে পৌছেন। এ সময় ইউএনও, পুলিশ ও ইউপি চেয়ারম্যানের যৌথ প্রচেষ্টায় উভয়পক্ষের উত্তেজনা প্রশমিত করতে সক্ষম হন। প্রত্যক্ষদর্শী কবির হোসেন জানান, এটি ন্যাক্কারজনক ঘটনা। ইউএনও ম্যাডাম গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করেছে। মোহাম্মদ মিয়ার বাড়িটি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ৫০ হাজার টাকা জরিমানা দিতে রুবেল গংদেরকে বলা হয়েছে। গৃহবধূ মরিয়ম বেগম জানান, তারা চরম অন্যায় করেছে। রুবেলের ভগ্নিপতি সাবেক ইউপি সদস্য ইসমাইলও সেখানে ছিল। নাছিমা আক্তার জানান, আমাদের বাড়ি ঘরের তান্ডব খুবই মারাত্মক। রেহেনা বেগম জানান, এটি বর্বরতার চেয়ে নিকৃষ্ট। নজরুল, বাদশাহ, রিদুয়ানসহ অনেকে জানান, আমরা এ ধরনের হামলা আর দেখেনি। বসতবাড়ির ছালে শত শত ইটের টুকরা। এ গুলো তারা নিক্ষেপ করেছে। পেকুয়ার ইউএনও পূর্বিতা চাকমা জানান, আমি দ্রæত গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে এনেছি। ১৪৪ এর জন্য মামলা

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2022
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com